CE

সিভিল টেকনোলজি

 

কাঙ্খিত ছোট্ট একটি বাড়ি, তাকে যত সুন্দর করে সাজানো যায় তার প্রাণান্ত চেষ্টা আদিকাল থেকেই মানুষ করে আসছে। বিশ্বময় গগণচুম্বি অট্টালিকা নির্মিত হচ্ছে, কত মিলিয়ন-মিলিয়ন ডলার নির্মাণ ব্যয় হচ্ছে, তবু যেন মানুষের সাধ মেটে না। আগ্রার তাজমহল আজও বিশ্বময় অত্যাশ্চর্য নির্মাণকীর্তি হিসেবে মানুষের মনে রেখাপাত করছে। যোগাযোগ অবকাঠামো, আবাসন অবকাঠামো, পরিকল্পিত শহর নির্মাণে যে কৌশল মানুষ আবিষ্কার করেছে, এ কৌশলীদেরকেই আজ পুরকৌশলী অর্থাৎ সিভিল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে গণ্য করা হয়। দালান-কোঠা, রাস্তা, ব্রীজ, কালভার্ট, বাঁধ, ওয়াটার ওয়ার্কস, সুয়েরেজ ওয়ার্কস, প্ল্যাম্বিং, মেটেরিয়াল টেস্টিং, সয়েল টেস্টিং, হাইড্রলোজিক্যাল ওয়ার্কস, সার্ভেয়িংসহ যাবতীয় কাজে প্ল্যানিং, এস্টিমেটিং,ডিজাইনিং ইত্যাদি কাজ সিভিল ইঞ্জিনিয়ার/টেকনোলজিস্টগণ করে থাকে। তাছাড়া মাঠ পর্যায়ের কাজগুলো বাস্তোবায়নে তদারকি, কাজের মান নিয়ন্ত্রণ, খরচের হিসাব, নির্মাণ শ্রমিকদের পরামর্শদান এবং নিয়ন্ত্রণ ইত্যাদি কাজের দায়িত্ব পালন করে। গণপূর্ত বিভাগ, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, এলজিইডি, ফ্যাসিলিটিজ, রেলওয়েসহ সরকারী-আধাসরকারী এবং বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে সাব-এসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার (কোন কোন ক্ষেত্রে এসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার) হিসেবে প্রাথমিক নিযুক্তি পায়। নির্মাণ কাজে ঠিকাদারী ব্যবসায় সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপ্লোমা গ্র্যাজুয়েটদের কাজের ব্যাপক ক্ষেত্র রয়েছে। মধ্যপ্রাচ্য, ক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াসহ বিশ্বের অনেক দেশে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপ্লোমা গ্র্যাজুয়েটদের বিশাল কর্মক্ষেত্র রয়েছে। প্রধান পাঠ্য বিষয়সমূহঃ সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ড্রইং, এস্টিমেটিং, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ম্যাটেরিয়ালস্ এন্ড ম্যাটেরিয়াল টেস্টিং, সয়েল মেকানিক্স, স্ট্রাকচারাল মেকানিক্স, থিওরী এন্ড ডিজাইন অব স্ট্রাকচার, হাইড্রলিক্স, হাইওয়েজ এন্ড রেলওয়েজ, এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং, কলস্ট্রাকশন প্রসেস, সার্ভেয়িং ইত্যাদি। সমৃদ্ধ জীবন গঠনের জন্য সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষা একটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহণ করা যেতে পারে।

 

সিভিল বিভাগ:

1। কনস্ট্রাকশন শপ

2। প্লাম্বিং শপ

3। ম্যাটেরিয়াল টেস্টিং ল্যাব

4। সয়েল মেকানিক্স ল্যাব

5। সার্ভে ল্যাব

6। উড্ শপ